It Update

আইপি অ্যাড্রেস কি এবং কিভাবে কাজ করে

হ্যালো সম্মানিত ভিজিটর আজকের ব্লগ টির বিষয়ে আমাদের স্বাভাবিক জ্ঞান এবং সাধারন বিস্তারিত সম্পর্কে লেখা।আশা করি ব্লগ টি থেকে কিছু জানতে পারবেন। তাই শুরু করা যাক আজকের বিষয়বস্তু নিয়ে।
আইপি অ্যাড্রেস কি এবং কিভাবে কাজ করে

আইপি অ্যাড্রেস কি এবং কিভাবে কাজ করেঃ

প্রতিটা IP Address হলো একটি Unique,যখন আপনি নির্দিষ্ট IP Address ব্যবহার করছেন তখন সেটি অন্য কারো সাথে মিলে যাবার কোন সিষ্টেম নেই। IP এর মানে হলো -Internet Protocol ।অর্থাৎ এই IP Address দিয়েই ব্যবহারকারীর Networkকে শনাক্ত করা যায় এবং করেও থাকেন। 
আপনি যে Internet Service Provider বা আইএসপি-এর কাছে থেকে Internet সেবা গ্রহন করছেন ,মূলত তারাই আপনাকে আলাদাভাবে শনাক্ত করতে পারেন এই আইপি এড্রেস দ্বারাই ইচ্ছা করলেই।

এবং Network ব্যবহারকারীর অবস্থান খুঁজে বের করাও । প্রতেক IP Address একটা নির্দিষ্ট লোকেশন কে নির্দেশ করে। 
তাই, আপনি যেকোন জায়গা থেকে Network ব্যবহার করলে সেটা IP Address-এর মাধ্যমেই জানা যায়। 
মূলত এই IP Adderss-গুলো হলো একটি Binary Number, কিন্তু একে বোঝার সুবিধার্তে এগুলোকে মানুষের কাছে পঠনযোগ্য সংকেত (অক্ষর বা সংখ্যা) দিয়ে প্রকাশ করে থাকে।
তাছাড়া হ্যাকারদের জন্যও তাদের কাজের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হচ্ছে IP Address.কারন যেহেতু IP Address-এর মাধ্যমেই সকল Network ব্যবহারকারীর স্থান জানা যায়, তাই হ্যাকারের পরিচয় তথা সকল প্রাইভেট তথ্য লুকিয়ে রাখা অনেক জরুরী।
নাহলে হ্যাকারের অবস্থান ব্যাক্তিগত প্রাইভেট ফাইল সহ সব কিছু ফাঁস হয়ে যেতে পারে বা চান্স থাকে।

আইপি অ্যাড্রেসের দুইটি ভার্সন রয়েছেঃ

উল্লেখ্য IPV4 ও IPV6 চালু আছে। 
প্রথমে IP পরিকল্পনাকারীরা Internet Protocol Address কে ৩২ বিট দিয়ে প্রথমবার প্রকাশ করেছিলেন এবং এই System Internet Protocol Version 4 (IPV4) নামে এখনো বেশ পরিচিত এবং যা এখনও ব্যবহৃত হচ্ছে। 
নেটওয়ার্ক বিস্তারের কারণে এবং অব্যবহৃত ওয়েব অ্যাড্রেস গুলো দিন দিন কমতে থাকার জন্য ১৯৯৫ সালে IPV6 নামে পরিচিত নতুন ভার্ষনের একটি আইপি অ্যাড্রেসিং পদ্বতি চালু করা হয়। 
এবং তখন IPV6 পদ্বতিতে প্রতিটি ওয়েব অ্যাড্রেসকে প্রকাশ করার জন্য প্রথম ১২৮ বিট ব্যবহার করা হয় ।এবং Internet Protocol Address গুলোকে স্টোর করে রাখতে বাইনারী সংখ্যা System ব্যবহার শুরু করা হয়। 
বাইনারী সংখ্যা পদ্বতি প্রকাশ করতে এবং সাধারণত মানুষের পাঠ উপযোগী সংকেত ব্যবহার করা হয়, উদাহরণ স্বরুপঃ 
180.210.130.13 (IPV4) 
2001:db8:0:1234:0:567:1:1 (IPV6)।

IPV4 ভার্সনঃ

IPV4 সিস্টেমে প্রতিটা আইপি অ্যাড্রেসকে প্রকাশের লক্ষ্যে ৩২ বিট করে ভাগ করা হয়। আবার এই ৩২ টি বিট ৪ টি অকটেডে ভাগ করা হয়,
এবং প্রতিটি অকটেড কে  (.)ডট  দ্বারা পৃথক করা হয়।যদিও নেটওয়ার্ক বিস্তারের কারণে বর্তমানে IPV6 নামে ১২৮ বিট এর আইপি অ্যাড্রেস চালু হয়েছে।

IPV4 SubNet কিঃ

Internet Protocol বা আইপি অ্যাড্রেস কে চালু করার প্রথম দিকে নেটওয়ার্ক প্রশাসকরা IP Address কে দুইটি ভাগে ভাগ করেনঃ 

  •  (Network ID) 
  •  (Host ID) 
নেটওয়ার্ক আইডি হলো আইপি অ্যাড্রেসের থাকা প্রথম ১৬বিট বা প্রথম দুইটি অকটেড এবং পরবর্তী অংশে রয়েছে বাকি ১৬টি বিট বা দুইটি অকটেড নিয়ে হলো হোস্ট আইডি। 
নেটওয়ার্ক আইডির Internet Protocol-এ সুনির্দিষ্ট নেটওয়ার্কটি খুঁজতে এবং হোস্ট আইডি দিয়ে মূলত ওই নেটওয়ার্কের ব্যবহার ডিভাইস কে চিহ্নিত করা হয়। 

এই ঘটনাটিকে আমরা আমাদের বাসা বা বাড়ির ঠিকানা সাথে তুলনা করতে পারি। 
ধরুন, আপনি একটি এলাকার ভবন বা বাড়ি খুঁজে বের করবেন। 
এবার আপনাকে ভবন বা বাড়িটি খুঁজে বের করতে হলে প্রথমে কিন্তু আপনাকে এলাকাটি খুঁজে বের করতে (Network ID) হবে কারন তানা হলে আপনি জানবেন না এবং পরবর্তিতে আপনি বাড়ির নম্বর জানা থাকলে (Host ID) খুব সহজেই আপনি বাড়িটি খুঁজে বের করতে পারবেন। 
কিন্তু বর্তমানে দিন দিন নেটওয়ার্কের সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য নেটওয়ার্ক খুঁজে বের করতে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এর কারণ একটি মাত্র অকটেড দিয়ে বিপুল পরিমান সংখ্যক নেটওয়ার্ক এর জন্য স্বতন্ত্র নেটওয়ার্ক আইডি নম্বর দেয়া সম্ভব ছিলো না। 

যার কারনে ১৯৮১ সালে Internet Addressing Specification এর সংশোধন করে ClassRoom Network নামক পদ্বতি প্রবর্তন করে।
এবং ClassRoom Network পদ্বতি নেটওয়ার্ক আইডি নম্বরের অসুবিধাটি দূর করে দেয় এবং পাশাপাশি সব সাব নেটওয়ার্ক ডিজাইন ও সহজ করে দেয়। 
ClassRoom Network পদ্বতিতে আইপি অ্যাড্রেসকে এর প্রথম ৮ বিট বা ১ অকটেডের প্রথম তিন বিটকে আইপি অ্যাড্রেসকে এর ক্লাশ (class) বলা হয়। 
Public Uni-cast Addressing এর জন্য আবার তিনটি ক্লাশ (class) A,B এবং C তৈরি করা হয়। ক্লাশের উপর নির্ভর করে কত গুলো স্বতন্ত্র আইডী প্রকাশ করা যাবে। 
নেটওয়ার্ক আইডি নম্বরের সংখ্যা যতো বেশি হবে হোস্ট আইডি নম্বরের সংখ্যা তত কম হবে।
যদি কোনো হ্যাকার আপনার এই আইপি অ্যাড্রেসকে জেনে ফেলে তাহলে মনে করুন যে আপনার বর্তমান লোকেশন থেকে শুরু করে আপনার যাবতীয় সব গোপন তথ্য সে দেখে নিতে পারবে।

এবার অনেকেই ভাবছেন আমার IP Address কীভাবে বের করবে যদি আপনার ফোনটাই আমি কাউকে না দেই, আসলে আপনি ভূল ভাবনা চিন্তা তৈরি করছেন আপনার মনের মধ্যে। 
কারন বর্তমান প্রযুক্তি প্রচুর পরিমাণ সামনে এগিয়ে গেছে তাই অযথা ভূল ধারণা মনের মধ্যে তৈরী থেকে বিরত থাকুন,আর আপনার অসাবধানতার কারণ গুলোর জন্যই আপনার IP Address হ্যাকার সংগ্রহ করে থাকে।

Also Read: ফেসবুক রিমেম্বারিং সমস্যা ও সমাধানের বিস্তারিত


কিছু দরকারী তথ্য জানুনঃ

আপনারা হয়তো এটা জানেন না যে,যেকোন বিষয় আমরা অনেকেই  Google কে ব্যবহার সার্চ করে আমাদের প্রয়োজনীয় ছবিসহ সব ধরনের কাজের জন্য ক্লিক করি।

অনেক হ্যাকার আছেন যারা Tracking Link নামক লিংক মেইক করে রাখে,এবং আপনি যখন ক্লিক করেন সাথে সাথে আপনি কোথায় বা কোন দেশে থাকেন এবং আপনার IP Address – কুকিস  চলে যাই হ্যাকার এর হাতে,
এখন হয়তো এটা বলবেন যে Google এর মতো একটা Company এর লিংক গুলোতে হ্যাকার কিভাবে Tracking করে!
ওই যে আগেই বললাম তথ্য প্রযুক্তি এখন আগের থেকে অনেক বেশি পরিমাণ এগিয়ে আছে, শুধু মাত্র Google এ আপ্লোড করা ছবির লিংক গুলো হ্যাকাররা সংগ্রহ করে এবং তাদের Special System এ লিংক  গুলির উপর Tracking লিংক তৈরি করে থাকে এতে তাদের দুই ধরনের সুবিধা হয়ে থাকে।
তারা একটা Tracking Link তৈরি করে এবং ওটাও কাউকে দিলে Google এর Picture বা অন্য কোনো ওয়েবসাইট এ সরাসরি Redirect করে এইভাবেও IP Address সংগ্রহ করে।

আমি আপনাদের Suggest করবো অবশ্যই কোনো অজানা লিংক এ ক্লিক করার আগে VPN ব্যবহার করে লিংকটা-তে ঢুকবেন।
কারন ভিপিএন হচ্ছে (Virtual Private Network) যার মাধ্যমে আপনি অন্য আইপি ব্যবহার করে সরাসরি ওইসব আন সিকিউরড ওয়েব পেইজ ভিজিট করতে পারবেন।

আশা করি মোটামোটি ভাবে বুঝে গেছেন তবে কেউ এর অপব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন কারন আগেই বলেছি বর্তমান প্রযুক্তি অনেক এগিয়ে গেছে সামনে।
তাই না বুঝে এমন কিছু করবেন না যা রাষ্ট্রবিরোধি কিংবা আইনি ঝামেলায় পড়তে হবে।
ভালো লাগলে অবশ্যই পোষ্ট শেয়ার করবেন এতে আওনি সহ আরো অনেকে উপকৃত হবেন।

Also Read: জেনে নিন ভিপিএন এর সকল খুঁটিনাটি বিষয়

Sabyasachi Dewery

Author | Blogger | Digital Marketing Influencer | Tech Researcher At www.sdewery.me

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button