Facebook Solution

ফেসবুকে পেজের লাইক বাড়ানোর কিছু উপায়

ফেসবুকে পেজের লাইক বাড়ানোর কিছু উপায়

আজকের টাইটেল দেখে বোঝার উপায় নেই যে আজকে এই টিউন টি শুধু ফেসবুকের পেজের লাইক বাড়ানোর বিষয়  নিয়ে আলোচনা করছি,বর্তমানে এমন কোন মানুষ তেমন পাওয়া যাবে না যেখানে ফেসবুক ব্যবহারকারী নেই। দেশের তথা সমগ্র বিশ্বের সোসাল সাইট হিসাবে টপ র‍্যাংকিয়ে ফেসবুক রয়েছে আমাদের সবার প্রথমে,এর কারন হিসাবে ব্যাখ্যা করতে পারি এর সহজলভ্যতা এবং ব্যবহার করার সহজ পদ্ধতি বলেই এটি সবার প্রথমে। আবার এই ফেসবুকই অনেক মানুষের ক্ষেত্রে ব্যবসা-বানিজ্য কিংবা মজা করার সহজ মাধ্যম যেখানে রয়েছে কোটি কোটি ইউজার, তাই ব্যবসা কিংবা নিজেদের শখে প্রসাররের জন্য ফেসবুক তৈরী করেছে পেজ নামক প্লাটফর্ম যেখান থেকে ফেসবুক ব্যবহারকারী রা তাদের ব্যবসা কিংবা ব্যাক্তিগত পরিচিতি তৈরী করে।

তবে ফেসবুক পেজের লাইক বিভিন্ন মাধ্যম কিংবা ইন্টারেষ্টের মত বিষয় গুলির উপরে হয়ে থাকে,যেমন মেয়ে দের ক্ষেত্রে তাদের ইন্টারেষ্ট কসমেটিক্স কিংবা বিভিন্ন কাপড় থ্রি-পিস বা শাড়ি বিক্রেতা পেজের উপরে থাকে আর ছেলেদের থাকে বিভিন্ন গ্যাজেট কিংবা জামা কাপড়ের উপরেই,এ ছাড়া পরিচিত গড়ে তুলে নিজেকে প্রেজেন্টেশন এর মাধ্যমেও হিসাবে নতুন কিছু জানান দেয়ার মাধ্যমেও মানুষের মধ্যে উইনিক বিষয় গুলির ইন্টারেষ্ট পৌছে দিতে পারে।


এবার মূল আলোচনায় আসতে পারি।

ফেসবুকে পেজের লাইক বাড়ানোর কিছু উপায় –

ট্রল পেজের ক্ষেত্রেঃ 

বর্তমানে ট্রল পেজ গুলি একটা ট্রেন্ড হিসাবে নিয়েছে বর্তমান এর ফেসবুক ব্যবহারকারীরা।প্রায় সব দেশই ট্রল পেজ গুলি দিয়ে অনেক নতুন ট্রেন্ড আবিষ্কার করছে আর সে গুলোই ভাইরাল হচ্ছে প্রচুর, ্তাই আপনি চাইলে ট্রল পেজ থেকে নিজের উইনিক আইডীয়া গুলি শেয়ার করতে পারেন,
প্রতিটা পেজই শুরু থেকে লাইক গুছানো অনেক কষ্ট কর তাই আপনাকে এ বিষয় গুলিও খেয়াল করতে হবে।

Also Read: Magpress v3 Blogger Theme Template [Premium Version] and Get Adsense


পোষ্ট শেয়ার করাঃ 

আপনি আপনার পেইজ টি আপনার নিজের টাইমলাইনে শেয়ার করুন এতে আপনার বন্ধুরা দেখতে পারবে এবং সেখান থেকে তারা লাইক দিবে বা পোষ্ট শেয়ার করে থাকবে এতে করে আপনার পেজ গ্রোয়িং টা শুরু হবে,
এছাড়াও, আপনি আপনার পোষ্ট দেয়ার পরে বিভিন্ন এক্টিভ গ্রুপে শেয়ার করবেন,এতে আপনার পেজের অর্গানিক রিচ বেরে যাবে যেটা পেজের ক্ষেত্রে অনেক বেশী উপকারী।
তাছাড়া আপনি যদি নতুন হয়ে থাকেন সে ক্ষেত্রে আপনি কিছু এক্টিভ পেজের সাহায্য নিতে পারেন,সেখান থেকে আপনি আপনার পোষ্ট অন্য পেজে শেয়ার করতে পারেন এবং আপনাকেও অই ব্যক্তির পেইজের পোষ্ট শেয়ার দিতে হবে ,আর নতুন পেজ এ একটু বেশী শেয়ার এবং রিচ হয়ে থাকে।

পোষ্ট এর মান নিয়ন্ত্রনঃ 

পোষ্ট দেয়ার ক্ষেত্রে রুচিশীল এবং ভাবতে হবে,এর মানে মানুষ কি ধরনের পোষ্ট চায় কিংবা কোন দিন পোষ্ট করছেন  বা বার হিসাব করে দিতে হয়,যেমন ধরুন ঃ রমজান মাসে ইসলামিক বিষয় গুলি বেশী প্রধান্য পায়। সে জন্য আপনি চাইলে ইসলামিক ভিডিও কিংবা ছবিতে বিভিন্ন বানী সুন্দর করে লিখে আপ্লোড করতে পারেন কারন মানুষ সব সময় উইনিক চায়,তাই ফন্ট এর ক্ষেত্রে গুরুত্ত্ব দিবেন, মোবাইল ব্যবহারকারী হলে (পিক্সেল ল্যাব) এপ্স এবং পিসিতে ফটোশপ এর মত অনেক সফট পাবেন।
এবং অন্য বার গুলি তে আপনি রোমান্টিক ছবি এবং মিমি শেয়ার করতে পারেন।

আবার ধরুন রমজান এর পরবর্তিকালীন সময়ে আপনি শুক্রবারে এ জুম্মার দিন হিসাবে ইসলামিক পোষ্ট করতে পারেন।

Also Read: Easy way to earn money by Writing Articles


রেফার বা বিশ্বস্থতাঃ 

রেফার করেও আপনি আপনার পেজের লাইক বাড়াতে পারেন কিংবা বিশ্বস্থতা করে আকৃষ্ট করে আপনি লাইক বাড়াতে পারবেন এজন্য আপনাকে আপনার পেজের পোষ্ট লিংক কপি করে বিভিন্ন পোষ্টে এ কম্মেন্ট করুন বেশী করে,আর বিশ্বস্থতা বলতে আপনি সেই পেজ গুলি তে আপনার পোষ্ট লিংক দিয়ে বিভিন্ন আকৃষ্ট মূলক কম্মেন্ট করুন,যেমনঃ হতে দেখেছি ,এটাই হয়েছে এবং এতে মানুষ আপনার উপরে ভরসা করে পোষ্ট দেখবে লাইক করবে।

৩র্ড পার্টি সাইটের সাহায্যেঃ 

আপনি চাইলে ৩র্ড পার্টি সাইট গুলোর সাহায্য নিতে পারেন,যেমন ধরুন অনেক সাইট পাবেন যেখানে প্রচুর এক্টিভ ব্যবহারকারী থাকে এবং সেসব সাইটে প্রথম বার রেজিষ্টার করলে পয়েন্ট পাবেন এবং সে পয়েন্ট অনুযায়ী এড দিতে পারবেন,এবং পয়েন্ট আর্নিং এর জন্য আপনাকেও তাদের পেজে লাইক দিতে হবে মানে আপনি তাদের গুলি লাইক করবেন আপনার গুলো তারা,এবাবে লাইক বাড়াতে পারবেন(যদিও এ ক্ষেত্রে তারা চাইলে আপনার উপর থেকে আবার লাইক সরিয়ে দিতে পারে কিংবা এগুলার বেশীর ভাগই বাইরের লাইক তাই এটা নেয়া না নেয়া আপনার বিষয়)

ব্যবসায়ীক ক্ষেত্রেঃ 

ব্যবসা বানিজ্য করতে হলে অবশ্যই ইনভেষ্টমেন্ট এর দরকার কারন আপনি ক্রেতা দের কাছে না ডাকলে তারাও সাড়া দিবে না সাভাবিক ভাবেই,তাই এজন্য আপনার ইনভেষ্টমেন্ট টাও জরুরী,কারন আপনার বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত পন্যটি মূলত কি সেটা কোথায় কোথায় বিক্রি করতে চান সেটা ডিপেন্ড করছে আপনার উপরেই।
এজন্য আপনাকে ফেসবুকের সাহায্য নিতে হবেই।
কারন আপনার পন্যটি ক্রেতার নিকটে পৌছে দিবে ফেসবুকই এটা মূলত বোষ্ট বলতে পারি ,যেখানে বিজ্ঞাপন সরাসরি ক্রেতার সার্চ ইন্টাররেষ্ট কিংবা এলাকা ভিত্তিক পৌছে যায়,এবং এই বোষ্ট করতে অল্প কিছু টাকা নিয়ে থাকে ফেসবুক।।

দেখা যায় ১  ডলার মানে (৮৫ টাকা ৪৫ পয়সা-ইস্টার্নব্যাংক অনুযায়ী) তে প্রায় ৫০০-২০০০ লাইক আসে এবং ক্রেতা রেস্পন্স ও অনেক বেশী তাহলে হিসাব করুন ১ ডলারে যদি ৫০০ ক্রেতা আসে তাহলে লস কিসের!! যদিও সব সময় ৫০০ নাও হতে পারে কারন এটা আপনার পোষ্টের এবং ইন্টাররেষ্ট এর উপরে ডিপেন্ড করে।

তাছাড়া ফেসবুকে ব্যবসা কেন্দ্রিক অনেক গ্রুপ রয়েছে সেখানে আপনি আপনার অবস্থা তুলে ধরুন আপনার ব্যবসায়ীক বিবরন তুলে ধরুন এতে মানুষ আকৃষ্ট হয়ে আপনার পেজে লাইক করে দিবে এবং আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

কোয়ালিটির উপর আর কোন টিপস নেই তাই শুধুমাত্র টেক্সট টিউন গুলো না করে তার সাথে রিলেটেড ইমেজ গুলো এড করে ব্যবহার করুন। ফানি ভিডিওর এবং ইমেজের ক্যাপশন ব্যবহার করতে পারেন। শধুমাত্র প্রোমোশনাল পোষ্ট না করে তার সাথে রিলেটেড পোষ্ট শেয়ার করুন। ২০% প্রোমোশনাল টিউন করতে পারেন এবং বাকিটা ৮০% ফানি টিউন শেয়ার করতে পারেন।

কাস্টমার সেবা ঃ 

পেইজে লাইভ বাটন এড করে কাস্টমার সেবা দিন এতে করে আপনার পেজের কাস্টমার বৃদ্ধি পাবে এবং কাস্টমার রিভিউ বারবে।

আসলে ফেসবুক একটি হুজুগে দুনিয়া কারো হাতে এর নিয়ন্ত্রন না থাকলেও কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করে লাইকের সংখ্যা বাড়ানো যায়।

তাই পোষ্ট করার ক্ষেত্রে যথাযথ ভাবে কিছু নিয়ম মেনেই পোষ্ট করুন ,লাইক কম্মেন্ট শেয়ার করুন।
আর পোষ্ট টি কেমন লেগেছে জানাতে ভুলবেন না….. 😚😚😚😚

 (বি.দ্রঃ আর বুষ্ট করে লাইক নিতে চাইলে ফেসবুকে আমার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন)

Also Read: Easy way to earn money by Writing Articles

Sabyasachi Dewery

Author | Blogger | Digital Marketing Influencer | Tech Researcher At www.sdewery.me

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button