Facebook Solution

ফেসবুক একাউন্ট ডিজাবেল হলে কি করবেন? দেখে নিন এক নজরে।

বর্তমানে আমরা ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করি না এমন মানুষ খুব কম দেখা যায়। 

আমাদের আশে পাশে প্রচুর মানুষ ফেসবুকের সাথে যুক্ত।
ফেসবুক আমাদের এক সাথে বেঁধে দিয়েছে এখন।তাই আমরাও প্রতিদিন সকাল হতে না হতেই ফেসবুক অ্যাপস এ লগিন করি।

সেই সাথে আমাদের যত রকম আড্ডা আর অনুভূতি আছে সব শেয়ার করা টা একবারে সহজ করে দিয়েছে এই ফেসবুক। কিন্তু এর মাঝেও আমরা বিভিন্ন ভাবে সমস্যার পড়ে যাই ফেসবুক একাউন্ট ব্যবহার করতে গিয়ে।

তাই আজকের নিবন্ধিত লেখাটি আপনাকে সাহায্য করবে যে কিভাবে আপনি ফেসবুক আইডি ডিজাবেল হলে কিভাবে রিকোভার করে নিবেন,এবং ফেসবুক একাউন্ট খোলার পূর্বে আপনার করণীয় কাজ গুলি কি??

ফেসবুক একাউন্ট ডিজাবেল হলে কি করবেন?

ফেসবুক একাউন্ট কেন ব্লক বা ডিজাবেল করেঃ

যেহেতু আমরা সবাই মোটামোটি ভাবে ফেসবুকে বিচরন করি সে ক্ষেত্রে ফেবসুকের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম-কানুন তাকে সে গুলো আমাদের মানা দরকার। 
আর না মানলেই আমরা পড়ে যাই ফেসবুকে উকাউন্ট ডিজাবেল সহ নানান রকমের টেম্পোরারী ব্লকে।

মূলত এ সমস্যা গুলি ফেসবুকের ফেইক একাউন্ট গুলি বেশি ফেস করে। কিন্তু সেগুলোর পাশাপাশি উদ্দেশ্যপ্রোনিত ভাবে আমরা আমাদের আশেপাশের শত্রুদের দ্বারা রিপোর্ট এর জন্য আমাদের ব্যবহার করা আইডী তে সমস্যা বা ডিজাবেল হতে দেখি।

তাই এ ধরনের সমস্যায় পড়ার আগে আপনি যখন একাউন্ট খুলে নিবেন তখন আপনি ফেসবুকের টার্মস ফলো করে একাউন্ট খুলে নিবেন এতে কোন সমস্যা হবে না।

বোঝার সুবিধার্তে যে বিষয় গুলি দেখে একাউন্ট খুলবেন সে গুলো এই নিবন্ধিত পোষ্টে উল্লেখ করছিঃ

১। ফেসবুক খোলার সময় আপনার ব্যক্তিগত নাম এবং আপনার আইডি কার্ড বা জন্ম-নিবন্ধনে উল্লেখ করা জন্ম তারিখ অনুযায়ী একাউন্ট খুলুন। এতে করে কেউ যদি আপনাকে রিপোর্ট করে তাহলে সেটা বেশি গ্রহনযোগ্য হবে না।

২। ব্যক্তিগত আইডি কার্ড প্রস্তুত রাখুন। 

যেমনঃ ভোটার আইডী কার্ড ,পার্সপোর্ট,জণ্মনিবন্ধন,স্কুল আইডি,কলেজ আইডি,বা যেকোন সরকারি ইস্যু করা আইডি।

৩। ফুল ফল বা উল্টোপাল্টা নাম ব্যবহার করবেন না। 

যেমনঃ আকাশ মনি,আমি তোমাকে চাই,ভালোবাসা দাও এসব নাম ফেসবুক এর পলিসি তে নেই যার জন্য ফেসবুক চাইলে আপনাকে ভেরিফিকেশন এ ফেলতে পারে কিংবা যদি কেউ আপনার ফেসবুক একাউন্টে  রিপোর্ট করে তাহলে ডিজাবেল হবার চান্স থাকে।

৪। ৩র্ড পার্টি অ্যাপস থেকে দূরে থাকুন। কারন এ ধরনের অ্যাপস কোন ভাবেই ফেসবুক এলাউ করে না যার ফলে তারা আপনাকে ভেরিফিকেশন এ ফেলে দিতে পারে। 

যেমনঃ অটো লাইক,অটো ফলোয়ার বা বোট সাইট এড় ব্যবহার।কারন আমরা লোভের বশেই এসব সাইট ব্যবহার করি।কিন্তু এগুলো এক দিকে যেমন টেম্পোরারি লক এর সমস্যা হতে পারে তেমনি আমাদের একাউন্ট ও হ্যাকড হতে পারে।

৫। ১৮+ বয়স ছাড়া ফেসবুক ব্যবহার করলে সেটি ফেসবুক আন্ডার এইজের ইস্যু ধরে নেয় এবং তারা একাউন্ট টিকে ক্লোজ করে দেয়।তাই যাদের বয়স ১৮ হয় নি তারা তাদের একাউন্ট এর বয়স বাড়িয়ে নিন এবং যখন ১৮ হবে সার্টিফিকেট অনুযায়ী তখন আবার ঠিক ঠাক বয়স দিয়ে দিবেন।

৬। এমন কোন ছবি ব্যবহার বা প্রোফাইলে আপ্লোড করবেন না যে গুলো আপ্লোডের সাথে সাথে আপনার একাউন্ট ডিজাবেল হতে পারে।

কারন অনেকে আপনাকে বিভিন্ন লিংক এর মাধ্যমে অই ছবি গুলো দিতে পারে এবং বলতে পারে এটা আপ্লোড দিন,কিন্তু অই ছবি গুলো হতে পারে কোন টেররিষ্টের,যেমন (বুরহান ডিজাবেল) বুরহান একজন পাকিস্তানি সন্ত্রাসী তার ছবি আপ্লোড করলেই সাথে সাথে একাউন্ট ডিজাবেল।

ফেসবুক একাউন্ট ডিজাবেল হয় সে ক্ষেত্রে কি করবোঃ

প্রথমে আপনি আপনার একাউন্ট  লগিন করে ইস্যু দেখে নিবেন কি কারনে আপনার আইডি ডিজাবেল দেখাচ্ছে বিশেষ করে আমাদের দেশে (Pretending,Violence Disable, Community Disable ,Self Lock Disable) এগুলো বেশি হয়ে থাকে।

এবং এগুলো থেকে একাউন্ট ব্যাক আনার জন্য আপনাকে আপনার আইডি কার্ড প্রুভ দেখাতে হবে ।সেখানে আপনি আপনার প্রথম নাম ,শেষ নাম এবং আইডি কার্ড আপ্লোড করে দিবেন।
তবে কার্ডের ছবি যেন ক্লিয়ার হয় এমন দিতে হবে।

এমন কোন ট্যাড়া ব্যাকা ছবি দিবেন না যেন কয়েক বার রিজেক্ট হলেই আর আইডি ব্যাক পাবার সম্ভাবনা হারায়।

তাই আমি স্ট্রংলি সাজেষ্ট করবো আপনি ভালো হয় আপনার ডকুমেন্ট কোন ফটোকপির দোকান থেকে আপনার কার্ড স্ক্যান করে নিন। এতে ব্যাক পাবার পসিবলিটি বেশি থাকে।
এবং কিছু একাউন্টে এডিশনাল ডকুমেন্ট লিখতে বলে সেখানে আপনি আপনার ডিজাবেল এর কারন,আইডি কার্ডের বিস্তারিত লিখে দিবেন।

তাছাড়া আপনি চাইলে হাতে র সামনে ধরে মুখ সহ আপনার কার্ড প্রথম পাতা যেখানে আপনার ডিটেইলস দেয়া থাকে।

কারন আপনি যদি সত্যিকারের ব্যবহার কারি হয়ে থাকেন তাহলে তারা ব্যাক দিতে বাধ্য।

বোঝার সুবিধার জন্য নিচে একটি আইড কার্ড এর ছবি কিভাবে তুলবেন তার একটি নমুন দিয়ে দিলাম এটি স্ক্যান কপির মত হতে হবে।

আইডি কার্ড


আরো কিছু বিষয় হচ্ছে সব থেকে ভালো হয় যদি আপনি একাউন্টে লক ব্যবহার করেন।
এর কারন এতে করে আপনার  শত্রুরা আপনার ছবি দিয়ে ফেইক একাউন্ট ক্লোনিং করতে পারবে না।
একাউন্ট ক্লোনিং করে শত্রুরা টার্গেট একাউন্ট ডিজাবেল করে।
এছাড়া একাউন্টে অপরিচিত মানুষ কে বন্ধু করা থেকে বিরত থাকুন।এবং খুব ভালো ভাবে ফেসবুকিং করুন।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন কেন একাউন্ট ডিজাবেল হয় এবং কিভাবে হয় এবং কি করবেন।
তাই আজকের এতো টুকুই,যদি আজাকের ব্লগ পোষ্ট টিয়া আপনার সম্ভাব্য উত্তর দিয়ে থাকে তাহলে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন।

আর যদি কিভাবে টার্গেট আইডি কিভাবে আইডি কার্ড বানাবেন কিংবা ফেসবুকের যেকোন সমস্যা থেকে থাকে আর সেগুলো জানার ইচ্ছা থাকে তাহলে কম্মেন্ট করে জানাবেন।

Sabyasachi Dewery

Author | Blogger | Digital Marketing Influencer | Tech Researcher At www.sdewery.me

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button